চোরকে চোর বলায় অপহরণ করে চাঁদা দাবী

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সুপারী চোরকে চোর বলার দায়ে সুপারী বাগান মালিকের নাতীকে অপহরণ করে মোটা অঙ্কের চাঁদা দাবি। চাঁদা দেয়ায় অনিচ্ছুক প্রকাশ করায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুত¦র আহত করেছে। মঙ্গলবার দুপর ২টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের পদ্মারচর গ্রামে এঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, বাঘমারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিক মাষ্টার (৪৮) ও তার ছোট ভাই নাসির উদ্দিন (৪৬)।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পদ্মারচর গ্রামের নুরুল আমিন, রঞ্জু, মাইদুল, সাইফুল স্বপন ও মুকুল গং নুরুল আমিনের নেতৃত্বে বাঘমারা গ্রামের আবেদ আলী মেম্বারের সুপারী বাগানে দীর্ঘদিন থেকে সুপারী চুরি করে আসতো। গত ১০ মে রাত ১০ ঘটিকার দিকে আবেদ আলী মেম্বারের নাতি আশিকুর রহমান ও আল মামুন সুপারী বাগান রাতে পাহারায় রাখে। রাত ১১টার দিকে চোরদেরকে সুপারী চুরি করতে দেখে চোরদের আটক করার চেষ্টা করে। পরে চোরগং’র দল ভারি হওয়ায় উল্টো আশিকুর ও মামুনকে চোরদের বাড়ি নিয়ে ঘর বন্দি করে দু’জনের বাড়িতে ফোন করে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে তারা। চাঁদা দিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করে এলাকার লোকজনসহ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে আশিক ও মামুনকে।

তার জের ধরে, গত ১২ মে মঙ্গলবার সকালে আশিক ও মামুনের চাচা নাসির উদ্দিন ধান কাটতে গেলে সেখানে অপহরন কারীরা নাসিরের কাছে আবারো চাঁদার দাবী করে। চাঁদা দিতে অস্বিকার করায় উপর্যপুরি কিল, ঘুষি, লাথি এবং লাঠি দ্বারা এলোপাথারি ভাবে মারপিটে গুরুত্বর আহত করে। পরে নাসিরের বড় ভাই রফিক মাষ্টার সংবাদ পেয়ে তাকে উদ্ধার করতে গেলে তাকেও ধারলো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় আশেপাশের লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে রৌমারী হাসপাতালে ভর্তি করেন।

রৌমারী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা: মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, আহত ব্যাক্তির অবস্থা আশংকাজনক মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপানো হয়েছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে রৌমারী থানার ওসি আবু মো. দিলওয়ার হাসান ইনাম জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share This: