করোনায় মৃত্যুর হারে ইতালির পরেই বাংলাদেশ

দেশে একমাস আগে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হলেও গত কয়েকদিন ধরে এর বিস্তার ঘটেছে উদ্বেগজনক হারে। এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩০ জন। এদের মধ্যে মারা গেছে ২১ জন। মৃত্যুর হার ৬.৩৬ শতাংশ। ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল চীনে এই হার ৪ শতাংশ। মারা যাবার হারের দিক থেকে ইতালির (৯ শতাংশ) পরেই বাংলাদেশের স্থান।

সরকারি হিসেবে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২১ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হলেও এর বাইরেও বহু মানুষ প্রাণঘাতি ভাইরাসে মারা গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। করোনা শনাক্তের পর থেকে দেশের বিভিন্ন সংবাদপত্রে কোভিড-১৯ এর উপসর্গ সর্দি-জ্বর, কাশি ও গলা ব্যাথা নিয়ে ৭১ জনের মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতির পর্যালোচনায় ওয়ার্ল্ডোমিটার থেকে প্রাপ্ত পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন ও ইতালির মত দেশে প্রথম ৩০ দিনে আক্রান্তের সংখ্যার চেয়ে বাংলাদেশে এ সংখ্যা বেশি।

করোনা শনাক্তের পর থেকে এ পর্যন্ত সারাদেশ থেকে প্রায় ৫ হাজার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বর্তমানে এই টেস্ট হচ্ছে ১৬টি ল্যাবে। প্রথম ২০ দিনে সারাদেশে মাত্র একটি ল্যাবেই করোনা শনাক্তের পরীক্ষা হতো।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে, টেস্টের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একদম পিছিয়ে। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত টেস্টের শতকরা হার প্রতি লাখে ২.২৩ ভাগ।

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, বাংলাদেশের জন্য এপ্রিল মাসটা সবচেয়ে বেশি উদ্বেগের।

Share This: