হলোখানায় শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনাটি ছিল সাজানো নাটক

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের খয়েরউল্ল্যাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনাটি ছিল একটি সাজানো নাটক। সরেজমিনে পরিদর্শনকালে সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে কথা বলে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে- ঘটনার দিন গত ২৩ এপ্রিল ছিল ওই স্কুলের প্রথম সাময়িক পরীক্ষা শুরুর দিন। এদিন পরীক্ষা শুরু হবার পূর্বে এলাকার লোকজন ওই বিদ্যালয়ে অহেতুক ভীড় জমিয়ে পরীক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘিœত করতে থাকলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বহিরাগত সকলকে স্কুল ছেড়ে চলে যেতে বলেন। এদিন স্কুল চলাকালীন সময় কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। অথচ একটি মহল ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর সুস্থ্য সবল শিক্ষার্থী নয়ন মিয়াকে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে প্রচার চালায় বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নাজমুল হাসান তাকে নির্যাতন করেছে। এই মর্মে বেশ কিছু মিডিয়ায় সংবাদও প্রচার করা হয়। গত ২৬ এপ্রিল এ ঘটনাটিকে চ্যালেঞ্জ করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরো মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুকুমার মজুমদারকে দিয়ে ওই শিক্ষার্থীর শারীরিক পরীক্ষা করা হয়। সিটি স্ক্যান ও এক্সরে রিপোর্ট পর্যালোচনা করে চিকিৎসক রিপোর্ট দেন- ওই শিক্ষার্থীর শরীরে নির্যাতন জাতীয় কোন ঘটনার আলামত পাওয়া যায়নি। ফলে ব্যবস্থাপত্রে তিনি কোন ঔষুধ লেখেননি।
এব্যাপারে হলোখানা ইউনিয়নের খয়েরউল্ল্যাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রদীপ কুমার রায়, অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক নাজমুল হাসান ও অপর সহকারী শিক্ষক সাইফুল ইসলামের সাথে কথা বললে তারা অকপটে স্বীকার করেন- পুরো ঘটনাটি ছিল একটি সাজানো নাটক মাত্র। তারা সকলেই ওই ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

Share This: