রাজারহাট মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজকে জাতীয় করণের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত

mp tajulষ্টাফ রিপোর্টারঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার মহিলা ডিগ্রী কলেজটিকে জাতীয় করণের তালিকা থেকে বাদ দিয়ে তার স্থলে এইক উপজেলার সুনামধন্য মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজকে জাতীয় করণের তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত সচিব-১ সাজ্জাদুল হাসান স্বাক্ষরিত এক পত্রে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়।
এ সিদ্ধান্ত জানার পর মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজের শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা আনন্দ-উল্লাসে ফেটে পড়েন। গত বৃহস্পতিবার মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আলহাজ্ব সফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সকল শিক্ষক-কর্মচারী কলেজের গর্ভনিং বর্ডির সভাপতি ও কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি আলহাজ্ব তাজুল ইসলাম চৌধুরীর সবুজ পাড়াস্থ বাসভবনে এসে তার হাতে ফুলের তোড়া তুলে দেন এবং তার ঐকান্তিক চেষ্টায় কলেজটি জাতীয় করণ হওয়ায় তার প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এসময় সকলের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।
এব্যাপারে মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আলহাজ্ব সফিকুল ইসলাম বলেন- আমাদের কলেজের সার্বিক যোগ্যতা থাকার পরও প্রথম দিকে এই কলেজটিকে জাতীয় করণের তালিকায় না রাখার সিদ্ধান্তে আমরা সকলেই মর্মাহত হয়েছিলাম। এ নিয়ে আমরা আন্দোলনও করেছি। অবশেষে কলেজের গর্ভনিং বর্ডির সভাপতি, কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ আলহাজ্ব তাজুল ইসলাম চৌধুরী মহোদয়ের ঐকান্তিক চেষ্টায় আমাদের কলেজটি জাতীয় করণের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় আমরা সকলেই তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোর জন্যই তার কাছে এসেছি।
এব্যাপারে মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজের গর্ভনিং বর্ডির সভাপতি, কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ আলহাজ্ব তাজুল ইসলাম চৌধুরী উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন- আমি বিদেশে থাকার সুযোগে একটি মহল মীর ইসমাইল হোসেন ডিগ্রী কলেজটিকে জাতীয় করণের তালিকায় রাখেনি। আমি দেশে ফিরে আসার পর বিষয়টি নিয়ে সরাসরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করি। তিনি আমাকে আশ্বস্ত করেছিলেন এই কলেজটিকে জাতীয় করণের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে কলেজটিকে জাতীয় করণের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছেন। এ জন্য আমি তার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।

Share This: