ভুরুঙ্গামারীতে ১৪ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে

এ এস খোকন, ভুরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের ভাওয়াল ও মির্জাপুর থেকে কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় আসা ১৪ গার্মেন্টস শ্রমিককে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে স্থানীয় প্রশাসন। শুক্রবার সকালে উপজেলার রায়গঞ্জ ব্রীজ পাড় থেকে টহল পুলিশ তাদের আটক করে ভুরুঙ্গামারী থানায় নিয়ে আসে। পরে তাদের ভুরুঙ্গামারী সরকারী কলেজের অডিটোরিয়াম ভবনে আগামী ১৪ দিনের জন্য রাখা হয় কোয়ারেন্টাইনে।

কোয়ারেন্টাইনে রাখা ওইসব ব্যক্তি ভুরুঙ্গামারী উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা। তাদের মধ্যে সাতজন পুরুষ, পাঁচজন নারী ও দু‘জন শিশু রয়েছে। তারা হলেন- ভুরুঙ্গামারী থানার সোনাহাট ইউপির উত্তর ভরতের ছড়া গ্রামের জুয়েল রানা (২০), কাকলী বেগম (১৯), সোনিয়া বেগম (২০), মাহিগঞ্জ চান্দুনিয়া গ্রামের ফরিদুল ইসলাম (২৭), নাজমা বেগম (২৫), কফিল উদ্দিন (২৭), রাবেয়া বেগম(২৪), ফেরদৌসী আক্তার ফাহিমা (৬), বৈশাখী আক্তার কনা (৭), দক্ষিন ভরতেরছড়া গ্রামের আশরাফুল আলম (২৪), আন্ধারীঝাড় ইউপির চর-ধাউরারকুটি গ্রামের রমজান আলী (২১), বলদিয়া ইউপির চর-বলদিয়া গ্রামের কিতাব আলী (২৭), হাফিজুর রহমান (২৪), মিষ্টি খাতুন (২৪)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভুরুঙ্গামারী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাঃ আতিয়ার রহমান জানান, গাজীপুর থেকে ট্রাকে ত্রিপল দিয়ে ঢেকে ভুরুঙ্গামারীতে আসা ওইসব ব্যক্তিদের পুলিশ চেকপোষ্টে আটক করে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন রাখা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ আবু সাজ্জাদ মোহাম্মদ সায়েম জানান, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা ওইসব ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেডিকেল টিম পাঠানো হয়েছে। শনিবার তাদের করোনা ভাইরাস সংক্রমনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফিরুজুল ইসলাম বলেন, করোনা মোকাবেলায় উপজেলা প্রশাসন যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় গাজীপুর থেকে আসা ওইসব ব্যক্তিদের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে করোনা সংক্রমন ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় তাদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হয়েছে।

Share This: