পশ্চিম রেলে দুর্নীতি

পশ্চিম রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্টদের প্রায় হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি ও অনিয়ম তদন্তে মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। জানা গেছে, গত তিন বছরে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী টেন্ডার ছাড়াই হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ পছন্দের লোকদের দিয়েছেন। বিনা টেন্ডারে কাজ করানোয় সরকারের বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে, যা বলাই বাহুল্য। উল্লেখ্য, আনুষ্ঠানিক টেন্ডার করার সময় না পেলে কোটেশন করার নিয়ম রয়েছে।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্টরা হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ কেন টেন্ডার ছাড়াই সম্পন্ন করলেন, এ প্রশ্নের উত্তর জানা জরুরি। দেখা গেছে, জনগুরুত্বপূর্ণ ও অর্থনীতির জন্য সুফলদায়ক বিবেচনায় রেলওয়ের বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেয়া হলেও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে সেগুলো একদিকে যেমন উপযোগিতা হারাচ্ছে, অন্যদিকে সরকারি অর্থের অপচয় ঘটছে।
এতে কেবল রাষ্ট্রই আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে না, দাতা সংস্থাগুলোর সঙ্গেও ভুল বোঝাবুঝির ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা না গেলে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের অর্থ পকেটস্থ করার সুযোগ তৈরি হয়, যার প্রকৃষ্ট উদাহরণ দেশের পশ্চিম রেলওয়ে।
রেলে বিরাজমান এ দুর্নীতির লাগাম এখনই শক্ত হাতে টেনে ধরা দরকার। তা না হলে সরকারি অর্থের কেবল অপচয়ই হবে না; একইসঙ্গে রেলওয়েকে যুগোপযোগী করার আশাও দুরাশায় পরিণত হবে।
দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রেলওয়েকে আলাদা মন্ত্রণালয় করা হলেও এতে বিশেষ কোনো লাভ হয়েছে বলে মনে হচ্ছে না। সুলভ ও নিরাপদ বাহন হিসেবে মানুষ রেলভ্রমণে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। লাগামহীন চুরি ও দুর্নীতি ছাড়াও নানা ধরনের অব্যবস্থাপনায় নিমজ্জিত রেল বিভাগের এ নিয়ে কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই।
বস্তুত কর্তৃপক্ষ গণমানুষের চাহিদা অনুধাবনে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। অতীতে রেল নিয়ে নানা ধরনের পরিকল্পনা ও উদ্যোগের কথা শোনা গেলেও কাক্সিক্ষত কোনো ফল পাওয়া যায়নি, বরং প্রতি বছর রেলওয়েকে লোকসান গুনতে হচ্ছে অন্যূন ৮০০ কোটি টাকা।
দুঃখজনক হল, পশ্চিম রেলওয়ের উল্লিখিত প্রকল্পগুলোই শুধু নয়, রেলওয়ের অধিকাংশ প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। এ অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে হলে রেলপথ মন্ত্রণালয়কে আপাদমস্তক ঢেলে সাজানো দরকার। তবে সবার আগে রেলের দুর্নীতি দূর করতে হবে। দুর্নীতি বজায় রেখে জাতিকে যুগোপযোগী রেল উপহার দেয়া কোনোমতেই সম্ভব নয়।

Share This: