ক্ষুধা-দারিদ্র মুক্ত কুড়িগ্রাম গড়তে সাড়ে ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে আইডিয়াল প্রকল্প’র কাজ চলছে

27.3-7বিশেষ প্রতিবেদকঃ ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত কুড়িগ্রাম গড়ার করার লক্ষে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) কর্তৃক পরিচালিত ইনিসিয়েটিভ ফর ডেভলপমেন্ট ইম্পাওয়ারম্যান্ট এ্যাওয়ারনেসেস এন্ড লাইভলিহুড প্রজেক্ট (আইডিয়াল প্রজেক্টের)’র কাজ চলমান রয়েছে। চার বছর মেয়াদী এ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২০ কোটি ৪৩ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। প্রকল্পের কার্য এলাকা হিসেবে কুড়িগ্রামের ৯ উপজেলার ৭২টি ইউনিয়ন এবং ৩টি পৌরসভাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এ প্রকল্পের মোট সুফল ভোগীর সংখ্যা ১৭ হাজার ৫শ’ ৩৫জন। প্রত্যেক সুফলভোগির যোগ্যতা অনুপাতে তাদেরকে ২২টি ট্রেডে হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ প্রদান করে তাদেরকে সাবলম্বি করে গড়ে তোলার কাজ করা হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে।
সুত্র জানায়- রাজস্ব খাতের অর্থায়নে পরিচালিত আইডিয়াল প্রকল্পের কাজ শুরু করা হয়  গত ২০১২ সালের জুলাই মাসে। এ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবে চলতি ২০১৬ সালের জুন মাসে।
প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে সুত্রটি জানায়- আইডিয়াল প্রকল্পে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে মোট ১৭ হাজার ৫শ’ ৩৫ জন সুফলভোগী নির্বাচন, ৬শ’ ৪৮টি ওয়ার্ড সংসদ গঠন, ৬৪৮টি ওয়ার্ড সংসদ কমিটি গঠন, ৭২টি ইউনিয়ন কমিটি গঠন, ৪শ’টি স্যানিটারী ল্যাট্রিন স্থাপন, ১টি বিপনন কেন্দ্র স্থাপন, ১টি নতুন পল্লী ভবন নির্মান, ৬টি পুরাতন পল্লী ভবন মেরামত ও সুফলভোগীদের ডাটাবেইজের কাজ শতভাগ সম্পন্ন করা হয়েছে। এছাড়াও মোট ১৭ হাজার ৫শ’ ৩৫ জন সুফলভোগীর মধ্যে ১২ হাজার ১শ’ ৪০জন সুফলভোগীকে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়েছে। এ কাজের অগ্রগতি শতকরা  হারে ৬৯ ভাগ অর্জন করা হয়েছে। এরপাশাপাশি ১৬ হাজার ৪শ’ ১০জন’র মধ্যে ১১ হাজার ১শ’ ১০ জন সুফলভোগীকে প্রশিক্ষনোত্তর সম্পদ সহায়তা প্রদান করা হয়। এ কাজের শতকরা অগ্রগতি ৬৭ ভাগ অর্জিত হয়েছে। অবশিষ্ট কাজ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবার পুর্বেই সম্পন্ন করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
আইডিয়াল প্রকল্পের সার্বিক পরিস্থিত সম্পর্কে কথা বলা হয়- প্রকল্প পরিচালক ও কুড়িগ্রামস্থ বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড’র উপ-পরিচালক বকুল চন্দ্র রায়ের সাথে। তিনি দৈনিক বাংলার মানুষ পত্রিকাকে জানান- ২০১০ সালের ৬মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুড়িগ্রাম সফরে এসে এই হতদরিদ্র জেলার ভাগ্যহত মানুষদের উন্নয়নকল্পে আইডিয়াল প্রকল্প চালু করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। উনার নির্দেশনা অনুসরণ করে কুড়িগ্রামে আইডিয়াল প্রকল্পের কাজ করার মাধ্যমে প্রকল্পের মুল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য পুরণ করার কাজ চলমান রাখা হয়েছে।
আইডিয়াল প্রকল্পের পরিচালক বকুল চন্দ্র রায় আরো বলেন- প্রকল্পের কাজ স্বচ্ছতার ভিত্তিতে সম্পাদনের মাধ্যমে আমরা প্রকৃত সুফলভোগীদেরকে সত্যিকারের সহায়তা দিয়ে আসছি। এ প্রকল্পের মাধ্যমে কুড়িগ্রামের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটের আমুল পরিবর্তন এসেছে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

Share This: