কুড়িগ্রাম এলজিইডি’র উদ্যোগ সুফল পাবে ৫ উপজেলার মানুষ

24.8-23ষ্টাফ রিপোর্টারঃ কুড়িগ্রামের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)’র আওতায় উলিপুর থেকে খেদাবাগ পর্যন্ত সড়কটি প্রশ্বস্ত করণ সহ ইমপ্রুভমেন্টের কাজ শুরু করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত ১০ কি. মি. ৪০০ মিটার রাস্তার কাজ গত জুন মাসে শুরু করা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ে নাজিমখান থেকে রাজারহাট উপজেলার রেল ক্রসিং পর্যন্ত প্রায় ৮ কি. মিটার রাস্তার কাজ করানোর জন্য প্রাক্কলন ব্যয় তৈরীর কাজ অব্যাহত রাখা হয়েছে। এরপর রাজারহাট উপজেলার রেল ক্রসিং থেকে খেদাবাগ পর্যন্ত রাস্তার কাজ করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে। এ সড়কটির প্রস্ত বর্ধিত করণ সহ ইমপ্রুভমেন্টের কাজ সম্পন্ন হলে বিভাগীয় শহর রংপুর সহ রাজধানী ঢাকা যেতে প্রায় ২০ কি. মিটার সড়কের দুরুত্ব কমে আসবে। যার সুফল পাবেন কুড়িগ্রামের উলিপুর, চিলমারী, রাজারহাট, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলার লাখ লাখ মানুষ। এছাড়াও কুড়িগ্রাম-চিলমারী সড়ক এবং রংপুর-কুড়িগ্রাম সড়কের উপর যানবাহনের চাপ অনেকাংশে কমে আসবে।
সুত্র জানায়-  উলিপুর থেকে খেদাবাগ পর্যন্ত সড়কটির প্রস্ত ছিল ১২ ফিট। সড়কটির গুরুত্ব বেড়ে যাওয়ায় কুড়িগ্রামের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) নবীদেব প্রকল্পের আওতায় সড়কটির দু’ ধারে ৩ ফিট করে বাড়ানো সহ ইমপ্রুভমেন্টের উদ্যোগ নেয়। ইতোমধ্যে সড়কটির উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত ১০ কি. মি. ৪০০ মিটার রাস্তার কাজ শুরু করার মধ্যদিয়ে গৃহীত উদ্যোগটি এখন বাস্তবায়নের পথে হাটছে। আগামী ১৭ সালের মধ্যে উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত ১০ কি. মি. ৪০০ মিটার এবং একই সময়ের মধ্যে নাজিমখান থেকে রাজারহাট উপজেলার রেল ক্রসিং পর্যন্ত প্রায় ৮ কি. মিটার রাস্তার কাজ সম্পন্ন করা হবে সংশ্লিষ্ট সুত্র আশা করছে।
উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত সড়কের চলমান কাজ দেখতে গিয়ে কথা হয়- উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রশীদ ও আলী আফছারের সাথে। তারা জানান- সড়কটির দু’ ধারে ৩ ফিট করে ৬ফিট বর্ধিত করণ সহ সড়কটির দু’ ধারে আরো তিন ফিট করে মাটির সোল্ডার করা হবে। কাজটি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করার জন্য আমরা ঠিকাদারকে তাগাদা দিয়ে যাচ্ছি।
উলিপুর উপজেলা প্রকৌশলী স্বাগতম কুন্ডু বলেন- উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত সড়কটির কাজ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত কোন সমস্যার মুখোমুখি হইনি। এ থেকে আশা করা যায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কাজ সম্পন্ন করা যাবে।
কুড়িগ্রাম এলজিইডি’র সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী শরিফুজ্জামানের সাথে কথা হলে তিনি জানান-উলিপুর থেকে নাজিমখাঁন পর্যন্ত সড়কটির সাথে যেন রাজারহাট অংশের কাজটি সম্পন্ন করা যায়, সেজন্য আমরা দ্রুত রাজারহাট অংশের  কাজটির টেন্ডার করার প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছি।
সর্বশেষ এ নিয়ে কথা বলা হয়-কুড়িগ্রামের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)’র নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমীনের সাথে। তিনি বলেন- এই মুহুর্তে আমি অফিসিয়াল কাজে ঢাকায় অবস্থান করছি। কাগজপত্র না দেখে বিস্তারিত বলা সম্ভব নয়। শুধু এই টুকু বলতে পারি উলিপুর থেকে খেদাবাগ পর্যন্ত সড়কটি প্রশ্বস্ত করণ সহ ইমপ্রুভমেন্টের কাজ পর্যায়ক্রমে অত্যন্ত দ্রুততার সাথে করা হবে। এ কাজটির প্রতি আমরা অধিকতর গুরুত্বারোপ করেছি।

Share This: